৮ ডিসেম্বর চাঁদপুর মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে চাঁদপুর পাকিস্তানি হানাদার মুক্ত হয়।

মোঃ ইউনুস পাটোয়ারী ০৮ ডিসেম্বর,২০১৯ ২৯ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৫.০০ ()

আজ ৮ ডিসেম্বর চাঁদপুর মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে চাঁদপুর পাক হানাদার বাহিনীর কবল থেকে মুক্তি পেয়েছিল। চাঁদপুর থানার সামনে বিএলএফ বাহিনীর প্রধান মরহুম রবিউল আউয়াল কিরণ প্রথম চাঁদপুরে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেছিলেন।

১৯৭১ সালের ৭ এপ্রিল চাঁদপুরে পাক হানাদার বাহিনী দুটি বিমান থেকে সেলিং এর মাধ্যমে প্রথম আক্রমণ করে। প্রথম দিনেই হামলায় চাঁদপুর শহরের পুরানবাজারের একজন নারী পথচারী নিহত হন। পরদিন ৮ এপ্রিল বিকালে প্রায় পাঁচশ পাকসেনা বোঝাই একটি বহর চাঁদপুর পৌঁছায়।

শহর থেকে তিন কিলোমিটার দূরে চাঁদপুর কারিগরি উচ্চ বিদ্যালয়ে অস্থায়ী ক্যাম্প তৈরি করে তারা। এ স্কুলের মাঠ থেকে লতুফা বেগম নামের এক বৃদ্ধা গরু-ছাগল বাড়ি নিয়ে যাওয়ার সময় পাকবাহিনীর সদস্যরা প্রথম অপারেশন হিসেবে ওই বৃদ্ধাকে গুলি করে হত্যা করে এবং বৃদ্ধার একটি গরু ও একটি ছাগল নিয়ে তারা রাতের খাবার খান। আর পাক সেনাদের অফিসারদের জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডের রেস্ট হাউসটি নির্ধারণ করা হয়েছিল।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি রক্ষার্থে চাঁদপুর পৌরসভা ও জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ২০১৩ সালে বড় স্টেশনের বধ্যভূমিতে নির্মাণ করা হয় ‘রক্তধারা’। এর আগে চাঁদপুরের প্রথম শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সুশীল, সংকর ও খালেকের নামে ট্রাক রোডে নির্মাণ করা হয় ‘মুক্তিসৌধ’ এবং চাঁদপুর শহরের প্রাণকেন্দ্রে লেকের ওপর ভাসমান মুক্তি স্মৃতিসৌধ ‘অঙ্গীকার’ নির্মাণ করা হয়। চাঁদপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মুখে স্বাধীনতা যুদ্ধে যারা শহীদ হয়েছেন তাদের নামের তালিকা সম্বলিত একটি স্মৃতিফলক নির্মাণ করা হয়। এছাড়া চাঁদপুর পৌরসভার পাঁচ রাস্তার মোড়ে পৌরসভার অর্থায়নে নির্মাণ করা হয় ‘শপথ চত্বর’।

তথ্যঃ সংগৃহীত।   

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
মোঃ সোহরাব হোসাইন
১৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০২:০২ অপরাহ্ণ

পূর্ণ রেটিং সহ শুভকামনা রইল। আমার কন্টেন্ট দেখে রেটিং, লাইক ও কমেন্ট দেয়ার জন্য বিনীত অনুরোধ রইল।


মো: নজরুল ইসলাম
১৭ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১১:২৮ পূর্বাহ্ণ

পূর্ণ ৫ রেটিংসহ শুভকামনা ও অভিনন্দন। আমার এ সপ্তাহের কন্টেন্ট দেখে রেটিং, লাইক ও কমেন্ট করার জন্য বিনীত অনুরোধ রইল।


লাইলী আক্তার
০৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০৯:৩৬ অপরাহ্ণ

লাইক এবং পূর্ণ রেটিংসহ শুভকামনা রইল। আমার এই সপ্তাহের কনটেন্ট ৫ম শ্রেণির English বিষয়ের Happy Birthday, Unite: 15 কনটেন্টটি দেখবেন এবং মতামত ও রেটিং দিবেন।


মোহাম্মদ গোলাম ছামদানী
০৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ০৩:০২ অপরাহ্ণ

সুন্দর শ্রেণী উপযোগী ও মানসম্মত কন্টেন্ট আপলোড এর জন্য পূর্ণ রেটিং সহ শুভকামনা রইল। আমার কন্টেন্ট দেখে রেটিং সহ মতামত প্রদানের জন্য বিনীত অনুরোধ করছি। আমার ছবির উপর ক্লিক করেন > কনটেন্ট টাইটেলের উপর ক্লিক করেন প্লিজ পূর্ণ রেটিং সহ মন্তব্য করুন। ধন্যবাদ। ICT4E জেলা শিক্ষক অ্যাম্বাসেডরশিপ প্রোগ্রাম শিক্ষাক্ষেত্রে আইসিটির বহুমাত্রিক ব্যবহার নিশ্চিত করে ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের আওতায় শিক্ষাক্ষেত্রে বিভিন্ন কার্যক্রম চলমান রয়েছে। শিক্ষায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার, গুণগত শিক্ষা বাস্তবায়ন ও শিক্ষায় উদ্ভাবনী সংস্কৃতির বিকাশে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর ও এটুআই এর যৌথ উদ্যোগে পরিচালিত হচ্ছে ICT4E জেলা শিক্ষক অ্যাম্বাসেডরশিপ প্রোগ্রাম। আমাদের লক্ষ্য আইসিটির বহুমাত্রিক ব্যবহারে প্রতি উপজেলায় কমপক্ষে ১০ জন করে দক্ষ শিক্ষকদের ICT4E জেলা শিক্ষক অ্যাম্বাসেডর হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করা যারা নিজ জেলা ও উপজেলায় শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা উন্নয়ন ও গুণগত শিক্ষা নিশ্চিত করণে শিক্ষাক্ষেত্রে চলমান আইসিটির বিভিন্ন কার্যক্রমে প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করবেন। ICT4E জেলা শিক্ষক অ্যাম্বাসেডর নির্বাচনের ক্ষেত্রে কিছু মানদণ্ডঃ - শিক্ষক বাতায়নের সক্রিয় সদস্য হতে হবে। - শিক্ষক বাতায়নে নিজের তৈরি কমপক্ষে ২০ টি কনটেন্ট থাকতে হবে। - সপ্তাহের সেরা কনটেন্ট নির্মাতা (শিক্ষক বাতায়ন) - মাল্টিমিডিয়া কনটেন্ট কম্পিটিশনে সেরা মডেল কনটেন্ট নির্মাতা - মাস্টার ট্রেইনার অফ আইসিটি ইন এডুকেশন - অ্যাডভানসড আইসিটি ট্রেনিং কোর্স সম্পন্নকারী - মাইক্রোসফট ইনোভেটিভ এডুকেটর -মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম সক্রিয়করণে বিশেষ ভুমিকা পালনকারী - মুক্তপাঠ প্রত্যয়িত (মাল্টিমিডিয়া কনটেন্ট তৈরি –MMCD ও বেসিক টিচার্স ট্রেনিং (BTT) কোর্স) - বেসিক টিচার্স ট্রেনিং (BTT) কোর্স)- আইসিটি ২ প্রকল্প - ধারাবাহিক মুল্যায়ন প্রশিক্ষণ- সেসিপ প্রকল্প উপরিউক্ত যে মানদণ্ডে (কমপক্ষে ৪ টি মানদণ্ড) আপনি নির্বাচিত হবেন তার প্রমাণপত্র সহ উপজেলা মাধ্যমিক/জেলা শিক্ষা অফিসের সুপারিশ দাপ্তরিক পত্রের মাধ্যমে স্ক্যান কপি avijitsdu@gmail.com এই ঠিকানাই পাঠাতে হবে।


মুহাম্মদ সালাউদ্দিন ভূইয়া
০৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১১:০৩ পূর্বাহ্ণ

আপনাকে ধন্যবাদ স্যার।


মোঃ ইউনুস পাটোয়ারী
০৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১০:৫৯ পূর্বাহ্ণ

ইতিহাস জানুন, নিজেকে সমৃদ্ধ করুন।