হযরত ইবরাহীম আ এর মিথ্যা বলা।অনেক সুন্দর একটি ঘটনা।অনেকে হয়তো আগে শুনেন নি।

মুহাম্মাদ শরীফুল্লাহ খান ১৭ মে,২০২০ ৭৬ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৫.০০ ()

পোস্ট নং ১৬৬
খুব সুন্দর একটা ঘটনা, অনেকেই হয়তো আগে শুনেন নি।
হাদীস নং ৩১২০-
সাঈদ ইবনু তালীদ রু‘আইনী ও মুহাম্মদ ইবনু মাহবুব (রহঃ) আবূ হুরায়রা (রাঃ) থেকে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন,রাসূল স বলেন, ইবরাহীম আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনবার ব্যতিত কখনও মিথ্যা ( কথাকে ঘুরিয়ে ) বলেন নি। তন্মধ্যে দু’বার ছিল আল্লাহ প্রসঙ্গে।
তার উক্তি ১,‘‘আমি অসুস্থ’’ (৩৭:৮৯)
২,তাঁর আর এক উক্তি ‘‘বরং এ কাজ করেছে, এই তো তাদের বড়টি। (২১:৬৩)
(এখানে ১ম দুটি ঘটনার উল্লেখ করা হয় নি)
আর ৩য় টি হলো,,,
বর্ণনাকারী বলেন, একদা তিনি (ইব্‌রাহীম আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং (তাঁর পত্নি) সারা অত্যাচারী শাসকগণের কোন এক শাসকের এলাকায় এসে পৌঁছলেন। (তা-ছিল মিসর) তখন তাকে (শাসককে) সংবাদ দেওয়া হল যে, এ এলাকায় একজন লোক এসেছে। তার সাথে একজন সর্বাপেক্ষা সুন্দরী মহিলা রয়েছে। তখন সে (রাজা) তাঁর (ইব্‌রাহীম) কাছে লোক পাঠাল। সে তাঁকে মহিলাটি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করল, এ মহিলাটি কে? তিনি উত্তর দিলেন, মহিলাটা আমার বোন। তারপর তিনি সবার কাছে আসলেন এবং বললেন, হে সারা, তুমি আর আমি ছাড়া পৃথিবীর উপর আর কোন মু’মিন নেই। এ লোকটি আমাকে তোমার সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করেছিল। তখন আমি তাকে জানিয়েছে যে, তুমি আমার বোন।(দ্বীনী বোন) কাজেই তুমি আমাকে মিথ্যা প্রতিপন্ন কর না। এরপর (অত্যাচারী রাজা) সারাকে আনার জন্য লোক পাঠালো। তিনি (সারা) যখন তার (রাজার) কাছে প্রবেশ করলেন এবং রাজা তাঁর দিকে হাত বাড়ালো তখনই সে (আল্লাহর গযবে) পাকড়াও হল।(হাত পা অবশ হয়ে গেল) তখন অত্যাচারী রাজা সারাকে বলল, আমার জন্য আল্লাহর নিকট দু’আ কর, আমি তোমার কোন ক্ষতি করব না। তখন সারা আল্লাহর নিকট দু’আ করলেন। ফলে সে মুক্তি পেয়ে গেল। এরপর দ্বিতীয়বার তাকে ধরতে চাইলো। এইবার সে পূর্বের ন্যায় বা তার চেয়ে কঠিনভাবে (আল্লাহর গযবে) পাকড়াও হল। এবারও সে বলল, আল্লাহর কাছে আমার জন্য দু’আ কর। আমি তোমার কোন ক্ষতি করব না। আবারও তিনি দু’আ করলেন ফলে সে মুক্তি পেয়ে গেল। তারপর রাজা তার কোন এক দারোয়ানকে ডাকল। সে (রাজা) তাকে বলল, তুমি তো আমার কাছে কোন মানুষ আননি। বরং এনেছ এক শয়তান। তারপর রাজা সারার খেদমতের জন্য হাযেরাকে দান করল।(রাজা বুঝতে পারল সারা কোন সাধারণ নারী নয়) এরপর তিনি (সারা) তাঁর (ইব্‌রাহীম) কাছে আসলেন, তিনি দাঁড়িয়ে সালাত আদায় করছিলেন। যখন তিনি হাত দ্বারা ইশারা করে সারাকে বললেন, কি ঘটেছে? তখন সারা বললেন, আল্লাহ কাফির বা ফাসিকের চক্রান্ত তারই বক্ষে ফিরিয়ে দিয়েছেন। (অর্থাৎ তাঁর চক্রান্ত নস্যাৎ করে দিয়েছেন।)আর সে (রাজা) হাযেরাকে খেদমতের জন্য দান করেছেন।
আবূ হুরায়রা (রাঃ) বলেন, ‘‘হে আকাশের পানির সন্তানগণ! এ হাযেরাই তোমাদের আদি মাতা।
( ১। ইব্‌রাহীম আলাইহি ওয়া সাল্লাম -এর উক্ত তিনটি উক্তি ঘুরিয়ে পেচিয়ে বলার অর্থ-প্রথমটি দ্বারা তাঁর উদ্দেশ্য ছিল মানসিক অসুস্থতা। আর দ্বিতীয়টির উদ্দেশ্য ছিল মুরতি-পুজারীদেরকে বোকা সাজানো এবং স্ত্রীকে বোন বলে পরিচয় দেওয়ার উদ্দেশ্য ধর্মীয় সম্পর্ক।
২। আকাশের পানির দ্বারা ইসমাঈল আলাইহি ওয়া সাল্লাম -এর বংশের পবিত্রতা বুঝানো হয়েছে।)

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
মুহাম্মাদ শরীফুল্লাহ খান
৩০ মে, ২০২০ ১২:৩৫ অপরাহ্ণ

ধন্যবাদ


অজয় কৃষ্ণ পাল
১৮ মে, ২০২০ ০৩:৫২ অপরাহ্ণ

শ্রদ্ধেয় প্যাডাগজি স্যার, রেটার মহোদয়, সেরা কনটেন্ট নির্মাতাগণ, বাতায়নের সকল স্যার- ম্যাম ও আইসিটি জেলা এম্বাসেডর মহোদয়গণ আমার উদ্ভাবনী গল্পটি দেখার ও পূর্ণ রেটিং সহ গঠনমূলক মতামতের জন্য বিনীত অনুরোধ করছি। আপনাদের সহযোগীতা পেলে সুন্দর , শ্রেণি উপযোগী ও মানসম্মত কনন্টেন্ট উপহার দিয়ে শিক্ষক বাতায়ন কে আরো সমৃদ্ধি করার চেষ্টা করব। শিক্ষক বাতায়ন আই ডি: ajoy.cbmhs


মুহাম্মাদ শরীফুল্লাহ খান
৩০ মে, ২০২০ ১২:৪২ অপরাহ্ণ

ধন্যবাদ


আবুল কালাম
১৭ মে, ২০২০ ০৪:৫৩ অপরাহ্ণ

লাইক এবং পূর্ণ রেটিং সহ শুভ কামনা রইল।


মুহাম্মাদ শরীফুল্লাহ খান
৩০ মে, ২০২০ ১২:৪২ অপরাহ্ণ

ধন্যবাদ


মোঃ শফিকুল ইসলাম
১৭ মে, ২০২০ ০১:৫৮ অপরাহ্ণ

পূর্ণ রেটিংসহ শুভ কামনা রইলো। আমার এ পাক্ষিকে আপলোডকৃত ৪৭তম কনটেন্টটি দেখে আপনার মূল্যবান মতামত সহ লাইক ও রেটিং প্রত্যাশা করছি।


মুহাম্মাদ শরীফুল্লাহ খান
৩০ মে, ২০২০ ১২:৪২ অপরাহ্ণ

ধন্যবাদ