বিজ্ঞানী আলেকজেন্ডার ফ্লেমিং এর পেনিসিলিন আবিস্কারের কথা।

রাজেন্দ্র চন্দ্র দাস ১০ অক্টোবর,২০২১ ১২৯ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৪.৬৭ ()

আজ আমরা সবাই পেনিসিলিন নামে একরকম ঔষধের নাম জানি। পেনিসিলিনে আছে রোগজীবানু ধ্বংস করার ক্ষমতা। কতো যে রোগ এ পেনিসিলিন দিয়ে সারানো হচ্ছে তাঁর কোন হিসেব নেই। কিন্তু এমন একটা সময় ছিল যখন পেনিসিলিনের কথা কেউ জানতো না। এই উপকারী ঔষধটি আবিস্কার করেছিল আলেকজেন্ডার নামে একজন স্কটিস বিজ্ঞানী। তাই এই আবিস্কারের জন্য সারা পৃথিবী তাঁর কাছে ঋণী। কোনদিন কেউ তাকে ভুলতে পারবে না। পরে ফ্লেমিং খুব বিখ্যাত হয়েছিলেন বটে,তবে তিনি ছিলেন দরিদ্র পিতা মাতার সন্তান । স্কটল্যান্ডের লকফিল্ড অঞ্চলের এক ক্ষুদ্র গ্রামে ১৮৮১ সালে ৮ আগস্ট তাঁর জন্ম হয়। চাষির ঘরে জন্ম তাঁর।কাজেই  আর্থিক অনটনের মাঝেই ছেলেবেলা কেটেছে তাঁর। অন্যদিকে মাত্র ৭ বছর বয়সে বাবার মৃত্যুতে ফ্লেমিং খুব বিপদে পরে যায়। নিরুপায় হয়ে ফ্লেমিং একটি জাহাজে চাকুরি নেয়। এইসময় তাঁর এক কাকার মৃত্যু হলে তাঁর কিছু সম্পত্তি পেয়ে যায় ফ্লেমিং। এবার তিনি লন্ডনে তাঁর পড়ালেখা চালিয়ে যান এবং ১৯০২ সালের প্রবেশিকা পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে পাশ করে লন্ডনের সেন্ট মেরিজ মেডিকেল স্কুলে ডাক্তারি পড়তে শুরু করেন । ১৯০৬ সালে সেখান থেকে চিকিতসাশস্রে ডিগ্রি পাশ করেন। এই সময় তাঁর পরিচয় হয় এডওয়ার্ড রাইট নামে একজন খ্যাতনামা অধ্যাপকের সাথে।রাইট তখন লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ে টাইফয়েডের জীবানু নিয়ে গবেষণা করছিলেন। তাঁর উপদেশে ফ্লেমিং লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ে জীবানু নিয়ে গবেষণা শুরু করেন এবং কয়েক বছর পর সেন্ট মেরিজ হাসপাতালে গবেষণা করতে থাকেন। একই সাথে ফ্লেমিং এই মেডিকেলে অধ্যাপনাও শুরু করেন ।একদিন তাঁর গবেষণাগারে হঠাত একটা ব্যাপার দেখে তিনি অবাক হয়ে যান। ফ্লেমিং তখন একরকম ব্যাক্টিরিয়া বা জীবানু নিয়ে গবেষণা করছিলেন।কতকগুলো পাত্রে ওই জীবানু রাখা ছিল। একদিন তাঁর নজরে এল যে , একটি পাত্রের জীবানু মারা গেছে। অন্য পাত্রগুলোর জীবানু যেমন জীবিত ছিল তেমনি রয়েছে। তাহলে ওঁই পাত্রের জীবানুগুলো মরলো কেনো। তিনি দেখলেন  ওই পাত্রের গায়ে ছত্রাক জমেছে। তবে কি ছত্রাকের জন্যই জীবানু মরল। যেমনি কথা তেমনি শুরু হল পরীক্ষা। পরীক্ষায় দেখা গেলো ওই ছত্রাকের মধ্যে পেনিসিলিন নামে এক প্রকার পদার্থ রয়েছে যার আছে জীবানু মেরে ফেলার ক্ষমতা। যতবারই ওঁই জীবানু আর ছত্রাক এক সাথে রাখা হয় ততবারই জীবানু মারা যায়। এ থেকেই ফ্লেমিং আবিস্কার করেন পেনিসিলিন। ইদুর ,খরগোশ প্রভৃতি প্রাণির শরীরে পেনিসিলিন ডুকিয়ে তিনি দেখলেন যে, তারের শরীরের ক্ষত সেরে যাচ্ছে.১৯২৯ সালে তিনি তাঁর বিরাট আবিস্কারের কথা একটি বিজ্ঞান পত্রিকায় প্রকাশ করেন।
তবে পেনিসিলিন তো শুধু আবিস্কার করলেই চলবে না। মানুষের শরিরে তাকে প্রয়োগ করে নানান রোগের হাত থেকে মানুষকে বাচাতে হলে ছত্রাক জাতীয় জিনিসের ভিতর থেকে পেনিসিলিনকে বার করতে হবে, তাকে শোধন করতে হবে। কিছুদিন পরে  ডা বরিস চেইন ও ডা ফ্লোরি নামে দুইজন গবেষক সেই কাজটা সেরে ফেলেন। এরা গবেষণা চালিয়ে কিছুদিনের মধ্যেই পেনিসিলিন তৈরী ও শোধন করার উপায় বের করে ফেললেন। এবার লন্ডনের পুলিশ হাসপাতালের রোগিদের উপর পেনিসিলিন ঔষধ হিসেবে প্রয়োগ করা হলো। রোগিরা সেরে উঠলেই চারদিকে ফ্লেমিং এর জয়জয়কার শুরু হলো। কয়েক বছর পর ১৯৪৫ সালে এই বিরাট আবিস্কারের জন্য ফ্লেমিংকে নোবেল পুরস্কার দিয়ে সম্মানিত করা হয়। ১৯৫৫ সালের ১১ মার্চ লন্ডনে মহান বিজ্ঞানি ফ্লেমিং এর মৃত্যু হয়।

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
Sabina Yeasmin
১২ অক্টোবর, ২০২১ ০৪:২৯ অপরাহ্ণ

সুন্দর ও শ্রেণি উপযোগী লেখা আপলোড করে বাতায়নকে সমৃদ্ধ করার জন্য আপনাকে পূর্ণ রেটিংসহ শুভকামনা ও অভিনন্দন। আমার কন্টেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত প্রদান করুন। ভালো লাগলে রেটিং, লাইক ও কমেন্ট দেয়ার জন্য বিনীত অনুরোধ রইল।


শিপ্রা রানী দাশ
১২ অক্টোবর, ২০২১ ০৩:৫৪ অপরাহ্ণ

সুন্দর ও শ্রেণি উপযোগী কন্টেন্ট আপলোড করে বাতায়নকে সমৃদ্ধ করার জন্য আপনাকে পূর্ণ রেটিংসহ শুভকামনা ও অভিনন্দন। আমার কন্টেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত প্রদান করুন। ভালো লাগলে রেটিং, লাইক ও কমেন্ট দেয়ার জন্য বিনীত অনুরোধ রইল।


শিপ্রা রানী দাশ
১২ অক্টোবর, ২০২১ ০৩:৫৪ অপরাহ্ণ

সুন্দর ও শ্রেণি উপযোগী কন্টেন্ট আপলোড করে বাতায়নকে সমৃদ্ধ করার জন্য আপনাকে পূর্ণ রেটিংসহ শুভকামনা ও অভিনন্দন। আমার কন্টেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত প্রদান করুন। ভালো লাগলে রেটিং, লাইক ও কমেন্ট দেয়ার জন্য বিনীত অনুরোধ রইল।


মোঃ নূর - ই- আলম ছিদ্দিকী
১২ অক্টোবর, ২০২১ ১২:৪৫ পূর্বাহ্ণ

অপূর্ব! লাইক ও পূর্ণরেটিংসহ আপনার জন্য শুভ কামনা ও অভিনন্দন। আমার কন্টেন্ট দেখার বিনীত অনুরোধ রইল।


লুৎফর রহমান
১০ অক্টোবর, ২০২১ ১০:৫৬ অপরাহ্ণ

Best wishes with full ratings. Sir/Mam. Please give your like, comments and ratings to watch my all contents


শরীফুল ইসলাম
১০ অক্টোবর, ২০২১ ০৬:২৪ অপরাহ্ণ

লাইক ও পূর্ণ রেটিংসহ শুভকামনা রইলো। আমার আপলোডকৃত কনটেন্ট দেখে লাইক, রেটিংসহ গঠনমূলক পরামর্শ দেওয়ার বিনীত অনুরোধ করছি। আমার প্রোফাইল দেখতে https://www.teachers.gov.bd/profile/sharifislam29 এই link টি Visit করুন। আমার কনটেন্ট দেখতে https://www.teachers.gov.bd/content/details/1149327 এই link টি Visit করুন।


সেলিম মাহমুদ
১০ অক্টোবর, ২০২১ ০২:৩৭ অপরাহ্ণ

লাইক ও পূর্ণরেটিং সহ শুভকামনা রইলো,আমার কনটেণ্ট ও ব্লগ দেখে আপনার মূল্যবান পরামর্শ ও রেটিং প্রদানের বিনীত অনুরোধ রইলো।