খবর-দার

‘ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তি সহজ করার সিদ্ধান্ত আত্মঘাতী’

মোঃ ওবায়দুর রহমান ( সুমন ) ০৫ জুলাই,২০২০ ১৪ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ০.০০ রেটিং ( )

কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে চলমান বিভিন্ন ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তির জন্য ন্যূনতম যোগ্যতা ও  ফি কমানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এসব কোর্সে ভর্তির ক্ষেত্রে ছেলেদের ন্যূনতম যোগ্যতা জিপিএ ৩ দশমিক ৫ থেকে কমিয়ে ২ দশমিক ৫ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আর মেয়েদের ক্ষেত্রে ন্যূনতম যোগ্যতা জিপিএ ৩ থেকে কমিয়ে ২ দশমিক ২৫ করার সিদ্ধান্ত। পাশাপাশি ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তি ফি ১ হাজার ৮২৫ টাকা থেকে কমিয়ে ১ হাজার ৯০ টাকা করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। একই সাথে পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ডিপ্লোমা কোর্সে ভর্তির ক্ষেত্রে বয়সসীমা তুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এসব সিদ্ধান্তকে আত্মঘাতী ও হটকারী বলে মন্তব্য করেছে বাংলাদেশ প্রাইভেট পলিটেকনিক উদ্যোক্তা সমিতি (বিপিপিইএ)। 

রোববার দৈনিক শিক্ষাডটকম এ পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ মন্তব্য জানান সমিতির নেতারা।

সমিতির সাধারণ সম্পাদক সোহেল স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষা তথা ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষাব্যবস্থায় ভর্তির নীতিমালায় বয়স অবারিত করা ও গত বছরের ন্যূনতম জিপিএ ৩ দশমিক ৫০ থেকে হ্রাস করে জিপিএ ২ দশমিক ৫০ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় গত ১ জুলাই যে আত্মঘাতী ও হটকারী সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে তা কারিগরি শিক্ষাকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাবে। বিপিপিইএ আরও লক্ষ করেছে কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ, কারিগিরি শিক্ষা অধিদপ্তর ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডসহ মাঠপর্যায়ের অংশজনদের সমন্বয়ে গঠিত ভর্তি কমিটির সুপারিশ ও নীতিমালা উপেক্ষা করে কোনোপ্রকার স্টাডি না করেই শিক্ষা মন্ত্রণালয় একতরফাভাবে এরূপ হটকারী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। যা ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষার জন্য হুমকিস্বরূপ। 

বিজ্ঞপ্তিতে, গত ১ জুলাই নেয়া হটকারী ও আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত বাতিল করে গত বছরের ভর্তি নীতিমালা অনুযায়ী ন্যূনতম জিপিএ ৩ দশমিক ৫০ ও গণিতে জিপি ৩ এবং শুধু ২০১৭ থেকে ২০১৯ শিক্ষাবর্ষের (৩ বছরের) শিক্ষার্থীদের দেশের সকল সরকারি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে ২০২০ খ্রিষ্টাব্দে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে ভর্তি করার জন্য আহ্বান জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দে সরকারি পলিটেকনিকে ৪৯ হাজার আসনের বিপরীতে ৯৮ হাজার আবেদন পড়া সত্ত্বেও কি কারণে ৩ দশমিক ৫০ এর পরিবর্তে এ বছর ২ দশমিক ৫০ এ নামানো হলো- তা কারো বোধগম্য নয়। এছাড়া ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং এ ভর্তিতে বয়সে বাধা তুলে দিলে সরকারি পলিটেকনিক এর শিক্ষার পরিবেশ বিনষ্ট হবে ও বয়সের কারণে শিক্ষার্থীদের মধ্যে ভারসাম্য নষ্ট হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এই হটকারী ও আত্মঘাতী সিদ্ধান্তের কারণে শিক্ষার এ গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গনকে অশান্ত করে তুলেছে ফলে দেশের পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের ছাত্র-ছাত্রী-শিক্ষক এবং সর্বস্তরের ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের মধ্যে গভীর ক্ষোভের সৃষ্টি হচ্ছে এবং যা বর্তমান পরিস্থিতি বিঘ্নিত করতে পারে বলে মনে করে বাংলাদেশ প্রাইভেট পলিটেকনিক উদ্যোক্তা সমিতি (বিপিপিইএ)।

তাই, গত ১ জুলাই নেয়া সিদ্ধান্ত বাতিল করে ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দের বিধিমালা অনুযায়ী দেশের সব পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ছাত্র ভর্তির বিজ্ঞপ্তি জারির অনুরোধ জানানো হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

মতামত দিন