প্রেজেন্টেশন

জেনে নিন সমবয়সী মেয়েকে বিয়ে করলে যে সমস্যার তৈরি হয়!

মুহাম্মদ আহসান হাবিব ২৩ ডিসেম্বর,২০২০ ১২৮ বার দেখা হয়েছে ১৪ লাইক ১৭ কমেন্ট ৪.৮২ রেটিং ( ১১ )

                           জেনে নিন সমবয়সী মেয়েকে বিয়ে করলে যে সমস্যার তৈরি হয়! স্বামীর বয়স স্ত্রীর বয়সের দ্বিগুণ হওয়াটা বেশ কিছুদিন আগেও ছিল স্বাভাবিক বিষয়। সময়ের পরিবর্তনে শিক্ষিত মানুষের মধ্যে বয়সের কম ব্যবধানে বিয়ে করার প্রবণতা বেড়ে গেছে উল্লেখযোগ্য হারে। বিয়ে মানে এখন শুধু সন্তানের জন্য নয়।

                          একই বয়সে পুরুষটি তখন টাট্টু ঘোড়া। মধ্য-দুপুরে পুরুষটি তখন নিদারুণ অসহায়। দিশেহারা পুরুষের দাম্পত্য জীবনে প্রভাব। অশান্তিতে শুরু হয় ডিভোর্সের সম্ভাবনা। সমবয়সে বিয়ে করা মানে অশান্তিকে দাওয়াত দেয়া।
                          পাত্রীর চেয়ে পাত্রের বয়স কমপক্ষে ৫ বছর এবং বেশি হলে ১০ বছরের মধ্যে থাকা উচিত। ব্যতিক্রম ঘটনা থাকতেই পারে, কিন্তু সেটা আলোচনার মধ্যে আসতে পারে না। ব্যতিক্রম সবসময়ই ব্যতিক্রম। তাই কিছু সমবয়সী দম্পতিও হতে পারেন দারুণ সুখীজীবনের সর্বাঙ্গীন সুখ-দুঃখ, হাসি-আনন্দ, সফলতা-বিফলতায় সমান ভাগিদার খোঁজা। তাই সমবয়সীদের মাঝে বিয়ের ব্যাপারটা ইদানীং খুব বেশি দেখা যাচ্ছে।
                      একইসঙ্গে পড়াশুনা বা চাকরি করতে গিয়ে কাছাকাছি আসা, মনের মিল খুঁজে পাওয়া এবং শেষে ঘর বাঁধা। সমবয়সী স্ত্রীর সঙ্গে বন্ধুর মতো সবকিছু শেয়ার করা যায়। নিজের ভালোলাগার বিষয়গুলো তার সঙ্গে মিলে যায় সহজেই। বিষয়গুলো আবার সব সময় একই রকম থাকে না।কখনও পড়তে হয় দারুণ বিপাকে। তাইতো অনেক অভিভাবকই মেনে নিতে পারেন না ব্যাপারটা। সমবয়সী বিয়ের ক্ষেত্রে কিছু কমন সমস্যা আমরা প্রায়ই দেখতে পায়, যা বিষিয়ে তুলতে পারে দাম্পত্য জীবনে।
                       অনেক সময় দেখা যায়, সমবয়সী পুরুষ মহিলার কাছে মানসিক দিক থেকে ভ্রাতৃতুল্য হয়। কিন্তু পুরুষটির আচরণে এসে পড়ে কর্তৃত্ব। যেহেতু নারীটি ওই পুরুষ থেকে পরিণতমনস্ক, সেই কারণে তার থাকে দিদিগিরি। অচিরেই শুরু হয়ে যায় ব্যক্তিত্বের সংঘাত।
                     আবার এমনো হয়, যুক্তি-বুদ্ধি নিয়ে গড়ে ওঠা মেয়েটির নিজস্ব চিন্তা ভাবনাকে সম্মান দেখানোর মানসিকতা থাকে না পুরুষটির। মেয়েদের যেহেতু পারিপার্শ্বিকতা বোঝার ক্ষমতা একটু বেশি।ছেলেটির তুলনায় মেয়েটি যখন বেশি সচেতন তখন তা হয় দাম্পত্য জীবনে মতভেদ, জটিলতা ইত্যাদির কারণ হয়। একে অপরকে যথাযথ সম্মান দিতে নারাজ। আবেগের ভাটা পড়লে সম্পর্কের পরণতি হয় ডিভোর্সে।
                   তবে এই সংঘাতের মধ্যদিয়ে কেউ টিকে গেলে আসে আরেক ঝামেলা। দুজনেরই বয়স যখন ৪০ থেকে ৪৫-এর মধ্যে। নারীদের জীবনে এটি একটি টার্নিং পয়েন্ট। নানা স্বাভাবিক সঙ্কট তৈরি হয় এ সময়। সন্তান ধারনের ক্ষমতা হারায়, স্বামীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে অনিচ্ছা,
                  ক্যালসিয়ামের অভাব ঘটে। একইসঙ্গে চলে মানসিক সমস্যা।এসবে তা ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠে। তারা ভাবতে শুরু করে, তার দেয়ার আর কিছু নেই। মনে চলে আসে বিষণ্ণতা। প্রাকৃতিক কারণে আগে পরিণত হওয়ায় নারীকে আগেই বার্ধক্য গ্রাস করে ফেলে!

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
মোঃ আকবর আলী
০৫ আগস্ট, ২০২১ ১২:৩৭ অপরাহ্ণ

লাইক ও পূর্ণ রেটিংসহ শুভকামনা। আমার কনটেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত ও সবকটি ক্যাটাগরিতে পূর্ণরেটিং প্রদান করার জন্য বিনীত অনুরোধ করছি।


মোসাঃশারমিন আক্তার
২৫ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৭:৫৯ পূর্বাহ্ণ

আপনার কনটেন্টটি সত্যিই অপূর্ব, শ্রেণি উপযোগি ও বাস্তব সম্মত হয়েছে। আপনার অনিন্দ্যসুন্দর কনটেন্ট এর জন্য অনেক অনেক শুভ কামনা রইল। সুন্দর উপস্থাপনার জন্য ধন্যবাদ । সেই সাথে আমার কনটেন্টটি দেখে আপনার মূল্যবান মতামত, লাইক ও রেটিং প্রদান করার জন্য বিনীত অনুরোধ করছি।


মোঃ মেহেদুল ইসলাম
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৫:৫০ অপরাহ্ণ

আসসালামু আলাইকুম। শ্রদ্ধেয় প্যাডাগজি রেটার, এডমিন, সেরা কনটেন্ট নির্মাতা, শিক্ষক বাতায়নের সকল শিক্ষক- শিক্ষিকা ও আইসিটি জেলা অ্যাম্বাসেডর স্যারদের জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা http://teachers.gov.bd/content/details/814604


মোহাম্মদ মাসুদ রানা
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০১:৪৪ অপরাহ্ণ

পূর্ণ রেটিং সহ শুভকামনা রইল। সে জন্য আপনাকে একটু সহযোগিতা করতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি। সেই সাথে কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি। আমার ১৭/১২/২০২০ তারিখের ৩৪তম সপ্তম শ্রেণির তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ২য় অধ্যায়ের "আউটপুট ডিভাইস" কনটেন্ট দেখে রেটিং সহ মতামত প্রদানের জন্য বিনীত অনুরোধ করছি। সৃষ্টিকর্তা আপনার মঙ্গল করুন।


মোছাঃ জেসমিন আক্তার
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০১:২৫ অপরাহ্ণ

লাইক ও পূর্ণরেটিংসহ শুভকামনা রইল। আমার এ পাক্ষিকের কনটেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত ও রেটিং দেওয়ার জন্য আপনাকে বিনীতভাবে অনুরোধ করছি।


বিনয় কুমার বিশ্বাস
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৯:৩৪ পূর্বাহ্ণ

মুজিব জন্মশতবর্ষের শুভেচ্ছা রইল । পূর্ণ রেটিং ও লাইকসহ শুভকামনা ও অভিনন্দন। আমার কনটেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত , রেটিং ও লাইক প্রদান করার জন্য বিনীত অনুরোধ করছি ।ঘরে থাকুন, সুস্থ থাকুন। নিরাপদে থাকুন। ধন্যবাদ । মন্তব্য করুন।


প্রদীপ কুমার রায়
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৯:১৪ পূর্বাহ্ণ

আমার কনটেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত, রেটিং ও লাইক প্রদান করার জন্য বিনীত পূর্ণরেটিংসহ শুভকামনা ও অভিনন্দন। অনুরোধ করছি।


স্বপন কুমার দাশ
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৮:৫৬ পূর্বাহ্ণ

পূর্ণ রেটিং সহ ধন্যবাদ আমার কন্টেন্ট দেখার জন্য অনুরোধ করছি।


সন্তোষ কুমার বর্মা
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৮:৫৪ পূর্বাহ্ণ

পূর্ণ রেটিং সহ ধন্যবাদ আমার কন্টেন্ট দেখার জন্য অনুরোধ করছি।


মোঃ শফিকুল ইসলাম
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৮:৪৭ পূর্বাহ্ণ

আমার কনটেন্ট দেখে আপনার মূল্যবান মতামত, রেটিং ও লাইক প্রদান করার জন্য বিনীত পূর্ণরেটিংসহ শুভকামনা ও অভিনন্দন। অনুরোধ করছি।


অচিন্ত্য কুমার মন্ডল
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৮:৪১ পূর্বাহ্ণ

শুভকামনা রইলো এবং সেই সাথে পূর্ণ রেটিং । আপনার তৈরি কন্টেন্ট আমার দৃষ্টিতে সেরার তালিকা ভুক্ত। সে জন্য আপনাকে একটু সহযোগিতা করতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি। সেই সাথে কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি। আমার এ পাক্ষিকের কন্টেন্ট ও ব্লগ দেখার ও রেটিং সহ মতামত প্রদানের জন্য বিনীত অনুরোধ করছি। ধন্যবাদ কন্টেন্টঃ https://www.teachers.gov.bd/content/details/814593 ব্লগঃ https://www.teachers.gov.bd/blog-details/586661


মোঃ রেয়াজুল ইসলাম
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৮:২৬ পূর্বাহ্ণ

লাইক ও রেটিং সহ শুভ কামনা রইলো। সুন্দর হোক আগামির পথচলা । আমার এ পাক্ষিকের কন্টেন্ট এ আপনার মতামত ও রেটিং প্রত্যাশা করছি। সুস্থ্য থাকুন, ভালো থাকুন।


আব্দুল্লাহ আত তারিক
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৮:০৭ পূর্বাহ্ণ

সুপ্রভাত, আপনার দিনটি শুভ হোক । অনেক শ্রমলব্ধ আপনার এই নির্মাণ। পূর্ণ রেটিংসহ আপনার সফলতা গল্প শোনার অপেক্ষায় থাকলাম । ডিসেম্বর - ২০ এর পাক্ষিক - ২ আমার নির্মিত কনটেন্ট নবম-দশম শ্রেণির বাংলা সাহিত্য বইয়ের কবি শামসুর রাহমান রচিত "তোমাকে পাওয়ার জন্য, হে স্বাধীনতা" দেখার জন্য আমন্ত্রণ রইল ।


মোঃ মহিদুল ইসলাম
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৮:০৪ পূর্বাহ্ণ

লাইক সহ শুভকামনা রইল। আমার কন্টেন্ট দেখে আপনার সুচিন্তিত পরামর্শ ও রেটিং প্রদানের প্রত্যাশা জ্ঞাপন করছি।


মোছাঃ হোসনেয়ারা পারভীন
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৮:০০ পূর্বাহ্ণ

লাইক ও পূর্ণ রেটিং সহ শুভকামনা রইল। আমার কন্টেন্ট দেখে আপনার সুচিন্তিত পরামর্শ ও রেটিং প্রদানের প্রত্যাশা জ্ঞাপন করছি। https://www.teachers.gov.bd/content/details/814842


মোঃ নুরুল ইসলাম তরফদার
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৭:৪৯ পূর্বাহ্ণ

লাইক ও রেটিং সহ শুভ কামনা রইলো । আমার এ পাক্ষিকের কন্টেন্ট ও উদ্ভাবনী " ডিজিটাল হাজিরা শীট" এ আপনার রেটিং ও মতামত প্রত্যাশা করছি। সুন্দর হোক আগামীর পথ চলা । সুস্থ্য থাকুন, ভালো থাকুন।


মুহাম্মদ আহসান হাবিব
২৩ ডিসেম্বর, ২০২০ ০৭:৪৫ পূর্বাহ্ণ

very good