ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর (১৮২০-১৮৯১) সংস্কৃত পন্ডিত, লেখক, শিক্ষাবিদ, সমাজসংস্কারক, জনহিতৈষী।

মুহাম্মদ লুৎফর রহমান ০৫ ডিসেম্বর,২০১৯ ৩২৮ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৫.০০ ()

বাংলা গদ্যের প্রথম সার্থক রূপকার ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর (১৮২০-১৮৯১)।  তিনি  ছিলেন বাঙালি শিক্ষাবিদ, সমাজসংস্কারক ও প্রাবন্ধিকও। জন্ম পশ্চিম মেদিনীপুরের বীরসিংহ গ্রামে। আসল নাম ঈশ্বরচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়। চার বছর ৯ মাস বয়সে সনাতন বিশ্বাসের পাঠশালায় শিক্ষাজীবন শুরু। পাঠশালার পাট চুকিয়ে বাবার (ঠাকুরদাস বন্দ্যোপাধ্যায়) সঙ্গে চলে যান কলকাতায়।


ভর্তি হন কলকাতা গভর্নমেন্ট সংস্কৃত কলেজে। পাণ্ডিত্য অর্জন করেন ব্যাকরণ, কাব্য, অলংকার, বেদান্ত ও জ্যোতিষশাস্ত্রে। সংস্কৃত ভাষা ও সাহিত্যে অগাধ পাণ্ডিত্যের জন্য পান বিদ্যাসাগর উপাধি। পড়াশোনা শেষ করে ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের বাংলা বিভাগের প্রধান পণ্ডিত হিসেবে যোগ দেন। এর পাঁচ বছর পরে যোগ দেন সংস্কৃত কলেজের সহকারী সম্পাদক পদে। তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থগুলোর মধ্যে আছে ‘বর্ণপরিচয়’, ‘সংস্কৃত ব্যাকরণের উপক্রমণিকা’, ‘ব্যাকরণ কৌমুদী’ ইত্যাদি। অনুবাদ : ‘‘শকুন্তলা’, ‘সীতার বনবাস’, ‘ভ্রান্তিবিলাস’বেতাল পঞ্চবিংশতি’, । সম্পাদনা : ‘অন্নদামঙ্গল’, রামায়ণ’, ‘রঘুবংশম’, ‘মেঘদূতম’, ‘উত্তরচরিতম‘শিশুপালবধ’, ‘বাল্মীকি ’।                   

মতামত দিন