মহান মে দিবস। এই দিবসে সকল শ্রমজীবী মানুষের ন‍্যয‍্যমুল‍্য ফিরে পাক এই প্রত্যাশা

মোঃ মোফাকখারুল আলম ০১ মে,২০২০ ৮০ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৫.০০ ()

১৮৮৬ খ্রিস্টাব্দে আমেরিকার শিকাগো শহরের হে মার্কেটের ম্যাসাকার শহিদদের আত্মত্যাগকে স্মরণ করে পালিত হয়। সেদিন দৈনিক আটঘণ্টার কাজের দাবিতে শ্রমিকরা হে মার্কেটে জমায়েত হয়েছিল। তাদেরকে ঘিরে থাকা পুলিশের প্রতি এক অজ্ঞাতনামার বোমা নিক্ষেপের পর পুলিশ শ্রমিকদের ওপর গুলিবর্ষণ শুরু করে। ফলে প্রায় ১০-১২ জন শ্রমিক ও পুলিশ নিহত হয়। ১৮৮৯ খ্রিস্টাব্দে ফরাসি বিপ্লবেরশতবার্ষিকীতে প্যারিসে দ্বিতীয় আন্তর্জাতিকের প্রথম কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে ১৮৯০ খ্রিস্টাব্দে থেকে শিকাগো প্রতিবাদের বার্ষিকী আন্তর্জাতিকভাবে বিভিন্ন দেশে পালনের প্রস্তাব করেন রেমন্ড লাভিনে।১৮৯১ খ্রিস্টাব্দে আন্তর্জাতিকের দ্বিতীয় কংগ্রেসে এই প্রস্তাব আনুষ্ঠানিকভাবে গৃহীত হয়। এর পরপরই ১৮৯৪ খ্রিস্টাব্দে মে দিবসের দাঙ্গারঘটনা ঘটে। পরে, ১৯০৪ খ্রিস্টাব্দে আমস্টারডাম শহরে অনুষ্ঠিত সমাজতন্ত্রীদের আন্তর্জাতিক সম্মেলনে এই উপলক্ষ্যে একটি প্রস্তাব গৃহীত হয়। প্রস্তাবে দৈনিক আটঘণ্টা কাজের সময় নির্ধারণের দাবি আদায়ের জন্য এবং শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য বিশ্বজুড়ে পয়লা মে তারিখে মিছিল ও শোভাযাত্রা আয়োজন করতে সকল সমাজবাদী গণতান্ত্রিক দল এবং শ্রমিক সংঘের (ট্রেড ইউনিয়ন) প্রতি আহ্বান জানানো হয়। সেই সম্মেলনে “শ্রমিকদের হতাহতের সম্ভাবনা না-খাকলে বিশ্বজুড়ে সকল শ্রমিক সংগঠন মে মাসের ১ তারিখে 'বাধ্যতামূলকভাবে কাজ না-করার' সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। অনেক দেশে শ্রমজীবী জনতা মে মাসের ১ তারিখকে সরকারি ছুটির দিন হিসেবে পালনের দাবি জানায় এবং অনেক দেশেই এটা কার্যকর হয়। দীর্ঘদিন ধরে সমাজতান্ত্রিক, কমিউনিস্ট এবং কিছু কট্টর সংগঠন তাদের দাবি জানানোর জন্য মে দিবসকে মুখ্য দিন হিসাবে বেছে নেয়। কোনো কোনো স্থানে শিকাগোর হে মার্কেটের আত্মত্যাগী শ্রমিকদের স্মরণে আগুনও জ্বালানো হয়ে থাকে। পূর্বতন সোভিয়েত রাষ্ট্র, চিন, কিউবাসহ বিশ্বের অনেক দেশেই মে দিবস একটি তাৎপর্যপূর্ণ দিন। সেসব দেশে এমনকি এ উপলক্ষ্যে সামরিক কুচকাওয়াজের আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশ এবং ভারতেও এই দিনটি যথাযথভাবে পালিত হয়ে আসছে। ভারতে প্রথম মে দিবস পালিত হয় ১৯২৩ খ্রিস্টাব্দে।

আমেরিকা ও কানাডাতে অবশ্য সেপ্টেম্বর মাসে শ্রম দিবসপালিত হয়। সেখানকার কেন্দ্রীয় শ্রমিক ইউনিয়ন এবং শ্রমের নাইট এই দিন পালনের উদ্যোক্তা। হে মার্কেটের হত্যাকাণ্ডের পর আমেরিকার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট গ্রোভার ক্লিভল্যান্ড মনে করেছিলেন পয়লা মে তারিখে যেকোনো আয়োজন হানাহানিতে পর্যবসিত হতে পারে। সে জন্য ১৮৮৭ খ্রিস্টাব্দেই তিনি নাইটের সমর্থিত শ্রম দিবস পালনের প্রতি ঝুঁকে পড়েন।

#_মহান_মে_দিবসে_শ্রমিকরা_তাদের_অধিকার_ফিরে_পাক_এই_হোক_প্রতিজ্ঞা_#

মতামত দিন
সাম্প্রতিক মন্তব্য
গোলাম ফারুক
০৪ মে, ২০২০ ০৫:৩১ অপরাহ্ণ

চলছে রহমতের মাস রমজান এই রমজান হোক সকলের জন্য বরকতময়।চমৎকার নির্মানের জন্য লাইক ও পূর্ণ রেটিংসহ শুভকামনা ।আমার এ সপ্তাহের কন্টেন্ট টি দেখে আপনার মূল্যবান মতামত ও রেটিং প্রদান করার জন্য বিনীত অনুরোধ করছি। বাতায়ন লিঙ্ক https://www.teachers.gov.bd/profile/glm.farukict


অজয় কৃষ্ণ পাল
০১ মে, ২০২০ ০৬:৪২ অপরাহ্ণ

শ্রদ্ধেয় প্যাডাগজি স্যার, রেটার মহোদয়, সেরা কনটেন্ট নির্মাতাগণ, বাতায়নের সকল স্যার- ম্যাম ও আইসিটি জেলা এম্বাসেডর মহোদয়গণ আমার উদ্ভাবনী গল্পটি দেখার ও পূর্ণ রেটিং সহ গঠনমূলক মতামতের জন্য বিনীত অনুরোধ করছি। আপনাদের সহযোগীতা পেলে সুন্দর , শ্রেণি উপযোগী ও মানসম্মত কনন্টেন্ট উপহার দিয়ে শিক্ষক বাতায়ন কে আরো সমৃদ্ধি করার চেষ্টা করব। শিক্ষক বাতায়ন আই ডি: ajoy.cbmhs https://www.teachers.gov.bd/content/details/564586 https://www.teachers.gov.bd/content/details/564583


মোঃ মোফাকখারুল আলম
০২ মে, ২০২০ ০৮:৫৫ পূর্বাহ্ণ

ধন্যবাদ


মুহাম্মাদ আলীমুদ্দীন
০১ মে, ২০২০ ০৫:৪০ অপরাহ্ণ

অসাধারণ লাইক ও পূর্ণ রেটিং সাথে দোয়া থাকলো | আমার বাতায়ন বাড়ি থেকে আমার কনটেন্টগুলো ও উদ্ভাবনীয় গল্পের নতুন নতুন ভিডিও উদ্ভাবন দেখে আসার অনুরোধ রইল ধন্যবাদ |


মোঃ মোফাকখারুল আলম
০২ মে, ২০২০ ০৮:৫৫ পূর্বাহ্ণ

ধন্যবাদ


মোঃ রফিকুল হাসান
০১ মে, ২০২০ ০৩:৩৭ অপরাহ্ণ

শ্রমিক মানে একটি দেশের উন্নয়ের অন্যতম মূল চালিকাশক্তি। লেখাটি সময়োপযোগী লেখা। আশাকরি যারা ব্লগটি পড়বেন তারা অনেক তথ্য জানতে পারবেন। শ্রমজীবী মানুষের প্রতি কোমল আচরণ করবেন। এই শিক্ষা এই লেখা থেকে পাবেন। ধন্যবাদ।


মোঃ মোফাকখারুল আলম
০২ মে, ২০২০ ০৮:৫৫ পূর্বাহ্ণ

ধন্যবাদ