ম্যাগাজিন

যে ১৫ কারণে আজই আপনার ব্যবসার উদ্যোগ নেয়া উচিৎ

মোঃ সামছুল হোসেন ০৩ জুলাই,২০২২ ১৬ বার দেখা হয়েছে লাইক কমেন্ট ৪.০০ রেটিং ( )

যে ১৫ কারণে আজই আপনার ব্যবসার উদ্যোগ নেয়া উচিৎ

আয় উপার্জন কিংবা জীবনে উন্নতির জন্যে একটা ব্যবসার চেয়ে ভালো বিকল্প নাই। যদি উদ্যোক্তা হতে চান আর সঙ্গে কাজের প্রতিও আপনার সমান আগ্রহ থাকেসময় নষ্ট না করে নিজে ব্যবসা শুরু করে দিন।

নিজে উদ্যোক্তা হলে ব্যবসাসংক্রান্ত সিদ্ধান্তগুলি নিজে নিতে পারবেন। ভুল করলেও অন্যের কাছে জবাবদিহি করতে হবে না।

শুধু আর্থিক কারণেই না বরং ব্যক্তিগতভাবেও আপনি স্বাধীন থাকতে পারবেন কাজ করার ক্ষেত্রে। ব্যবসা শুরুর ক্ষেত্রে নিচে বর্ণিত ১৫টি কারণ আপনাকে অনুপ্রেরণা দিতে পারে।
.

#
আপনার হাতে যথেষ্ট সময় আছে

দিনের ২৪ ঘণ্টা সময় আমরা প্রত্যেকেই পাই। কেউ তা কাজে লাগাইকেউ হেলায় নষ্ট করি। যদি মনে করেন কোনো কাজের পেছনে ব্যয় করার জন্যে আপনার অফুরন্ত সময় নেইতাহলে ব্যবসা আপনার জন্যে না। এর বাইরে ভেবে দেখতে পারেনসারাদিনে কী কী করেন। অযথা জিনিসে সময় বেশি গেলে ব্যবসা শুরু করে দিতে পারেন সেসব কমিয়ে। ব্যবসা করার ক্ষেত্রে আপনাকে সবসময় সর্বোচ্চ গুরুত্বটা দিতে হবে।
.

#
আপনার কাছে টাকা আছে

উদ্যোক্তা হওয়া মানে সবচেয়ে কম বিনিয়োগ করেতা থেকে সবচেয়ে বেশি আয় করা। আর ব্যবসা মানেই যেকোনো বিনিয়োগের ক্ষেত্রে কলাকৌশল প্রয়োগ করা।

আপনার কখনোই মনে হবে নাব্যবসা শুরুর জন্যে যথেষ্ট টাকা হাতে আছে। এটা স্বাভাবিক। তবে যদি প্রয়োজনীয় অর্থও না থাকেতা নিয়ে দুঃচিন্তা করবেন না। বরং ব্যবসার পরিকল্পনায় কিছু কাটছাঁট করুনযেভাবেই হোক যাতে শুরুটা অন্তত হয়।
.

#
আপনার সাহস আছে

প্রায় সব উদ্যোক্তাই শুরুর দিকে ব্যবসা নিয়ে বেশ আশঙ্কায় থাকেন। ব্যবসা মানেই ঝুঁকি।

ভয় পেলেও যেকোনো সমস্যার সমাধান ঠিক পেয়ে যাবেন কোনো না কোনো ভাবে। হয়তো ভয় পেয়ে পিছিয়েও পড়বেন। কিন্তু হতে পারে এই ভয় আপনাকে ব্যবসার ভবিষ্যৎ সম্পর্কে প্রস্তুতি নিতে সাহায্য করবে। এমনকি বড় বড় সিদ্ধান্ত নিতেও শেখাবে।
.

#
যোগাযোগের বিকল্প আছে আপনার

ফেইসবুক বা টুইটারের মত সোশ্যাল মিডিয়ার কারণে এখন যে কারো সঙ্গে যে কোনো সময় যোগাযোগ করা সহজ। ইন্টারনেট কানেকশন আর তা ব্যবহারের জন্যে একটা ডিভাইস থাকলেই হলো। আপনি সবার কাছেই পৌঁছাতে পারবেন। এতে করে ভোক্তা ছাড়াও আরো যাদের সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক গড়ে তোলা দরকার তাদের সাথেও যোগাযোগ এখন অনেক সহজ হয়ে গেছে।

তবে সবাই যে এতে সাড়া দেবে এমন না। ফলে যার সঙ্গেই ব্যবসায়িক সম্পর্কে যাচ্ছেন তাকে আগে বোঝান আপনার পণ্য সম্পর্কেআপনি ঠিক কী করছেনকেন সে আপনার ভোক্তা বা ক্রেতা হবে। এই বিষয়টার যদি একটা ভালো ফর্ম দাঁড় করিয়ে ফেলতে পারেন তাহলেই ব্যবসার প্রসার ঘটবে।
.

#
উদ্যোগ নেওয়ার সময় এখনো পার হয়ে যায়নি

ইন্টারনেটের জগতে ফেসবুকই প্রথম সোশ্যাল মিডিয়া না। এর আগেও অনেক সোশ্যাল মিডিয়া এসেছে। স্টিভ জবসের গ্রাফিকাল ইন্টারফেস বা মাউসের পুরনো ধারণাতেও কেউ আর আটকে নেই। এমনই অসংখ্য সফলপ্রতিষ্ঠিত ব্যবসাও পরে গিয়ে জনপ্রিয়তা হারিয়েছে। তার জায়গায় এসেছে নতুন কিছু। ফলেআপনাকে সবসময়ই নতুন নতুন আবিষ্কার করে যেতে হবে। পুরোনো জিনিস নিয়ে বসে না থেকে বরং আগের আইডিয়াগুলি দিন দিন আরো উন্নত করার মাধ্যমে সময়ের সাথে তাল মেলাতে হবে।
.

#
মানুষকে নিজের উদ্যোগের ব্যপারে জানাতে পারছেন

একটু ভিন্ন ধরনের ব্যাপার জানতেই মানুষের আগ্রহ বেশি। কেউ আপনার কথা না শুনতে চাইলে বুঝতে হবে সেই আগ্রহটা তাদের মধ্যে আপনি তৈরি করতে পারছেন না। এক্ষেত্রে কাছের কাউকে জিজ্ঞেস করে দেখতে পারেনআপনার পণ্যের ব্যাপারে সে কী ভাবে। আর কী কী পেলে বা হলে সে আরো আগ্রহী হত এই পণ্য সম্পর্কে।
.

#
আপনি দক্ষনা হলেও সুযোগ আছে

দক্ষতা বাড়ানোর জন্য প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নিতে পারেন। বই পড়তে পারেন। বন্ধুদের সাথে আলোচনা করতে পারেন। কোন ক্ষুদ্র ব্যবসায় পার্ট টাইম চাকরি নিতে পারেন। তাছাড়া দক্ষ কাউকে আপনার সাথে কাজ করতে অনুরোধ করতে পারেন।

এই কাজগুলিতে খুব বেশি খরচ হবে না আপনার। অভিযোগ করার কিংবা অজুহাত দেয়ার অভ্যাস যদি থাকে তা বাদ দিন। এর বদলে নিজের উন্নয়নের জন্যে সুযোগ খুঁজুন।
.

#
অসাধারণ সব আইডিয়া আছে আপনার মাথায়

একদমই নতুন কিছু ভেবে বের করা একটু কঠিনই। কিন্তু যা ইতোমধ্যেই আছেতা শুধু একটু সংস্কার করে ভোক্তাদের সামনে নিয়ে আসা কিন্তু সহজ।

তাই আপনার মাথায় যদি ছোটখাটো কোনো ব্যবসা বা ব্যবসার প্ল্যান থাকেতা নিয়েই চিন্তা করতে থাকুন। সমস্যা খুঁজে বের করুন। সমস্যার সমাধান বের করতে পারাটাই আপনার নিজস্ব আইডিয়া। নতুন কিছুই উদ্ভাবন করতে হবে এমন না। বেশির ভাগ বড় বড় ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলি অন্যের আইডিয়া নিয়ে তা ধাপে ধাপে উন্নত করার মাধ্যমে সফল হয়েছে।
.

#
ঝুঁকি নেয়ার মত মনোবল আপনার আছে

আজ কোনো ঝুঁকি নিলে ভবিষ্যতে তার ফল পাবেন। এতে আপনার আত্মবিশ্বাস বাড়বে। ঝুঁকি নেয়ার কারণে যদি লসও হয়আপনি অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করতে পারবেন। ঝুঁকি নেয়ার ভয়ে যদি চেষ্টাই না করেনতাহলে পরে গিয়ে আপনাকে আফসোস করতে করতে হবে। আর অনেক সম্ভাবনা তৈরির সুযোগও হাতছাড়া হয়ে যাবে আপনার।
.

#
১০পরিপূর্ণতার জন্যে আপনি অপেক্ষা করেন না

উদ্যোক্তাদের একটা বড় অংশ ব্যবসা শুরুই করতে পারেন না। তারা শুরুতেই নিজেদের আইডিয়া আর উপকরণের মান উন্নয়ন নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। বার বার সংশোধন আর পরিমার্জনের ব্যাপারে ভাবতে ভাবতে ক্লান্ত হয়ে একসময় হাল ছেড়ে দেন।

ব্যবসার ক্ষেত্রে পারফেকশন অত জরুরি কিছু না। তবে এই ধরনের চিন্তাভাবনা আসে সফল না হতে পারার ভয় থেকে অথবা অন্যদের সমালোচনার মুখে পড়ার ভয় থেকে। ফলেএখন যখন জানলেন বিষয়টা আর দেরি না করে কাজ শুরু করে দিন কী হবে না হবে তা নিয়ে অত না ভেবে।

মনে রাখবেনভুল হলে যারা আপনার সমালোচনা করবে তারা কিন্তু আপনার ব্যবসাটা করবে না। ভুল হলেও যা সফল হলেও তাআপনার ব্যবসা আপনাকেই করতে হবে।
.

#
১১আপনি মানিয়ে নিতে পারেন

অনেকেই অনেক কাজ করতে গিয়ে ইতস্তত বোধ করতে পারে। এমনও হতে পারেযেসব কাজ সচরাচর সবাই করছে তা করতে গিয়েও সে দোটানায় পড়ছে। ব্যবসার সময়ে ওই কাজটা করাই হয়ত জরুরি হয়ে দাঁড়াবে। তখন তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত না নিতে পারলে আপনি বিপদে পড়বেন। এই সময়ে বাস্তবভিত্তিক চিন্তা করাই সবচেয়ে নিরাপদ। ভালো হয় যদি সেই পরিস্থিতির সাথে নিজেকে মানিয়ে নিতে চেষ্টা করেন।
.

#
১২সফলতার নিশ্চয়তা না থাকলে ভয় পাওয়ার কিছু নেই

সফল উদ্যোক্তা আর ব্যবসায়ীদের নিয়ে আমরা ভাবি তাদের মধ্যে দূরদৃষ্টিদক্ষতাসৃজনশীলতা আর অধ্যবসায়ের মতো গুণগুলি আছে। যেটা আমাদের নেই। এই চিন্তা ভিত্তিহীন। গুণ যতই থাকুক কেউই শুরুতে জানে না সে সফল হবে কিনা।

সফলতার নিশ্চয়তা না থাকলে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। বরং এর ফলেই আপনার আত্মবিশ্বাস বাড়তে পারে। অনেক উদ্যোক্তা আর ব্যবসায়ী ধৈর্য্য ধরে কাজ করে গিয়েই সফল হয়েছেএই বিশ্বাস নিজের ব্যাপারেও রাখুন।
.

#
১৩যেটা করছেন কাজ তা খুব বেশি কঠিন না

দীর্ঘ ভ্রমণের ব্যাপারে চিন্তা করা কঠিন। কিন্তু হাঁটার সময় পরের পা কোথায় ফেলবেনতা ভেবে ফেলতে পারা সহজ। ব্যবসা শুরুর সময়ও কাজগুলিকে ঠিক এই পা ফেলার মত ছোট ছোট ভাগে ভাগ করে নিন।

ব্যবসার জন্যে একটা জায়গা খুঁজুনএকটা পরিকল্পনা দাঁড় করান। যদি ব্যবসায় পার্টনার থাকেতাদের সাথে কথা বলুন। কাজগুলি ছোট ছোট হয়ে গেলে কাজ করাও সহজ মনে হবে আপনারআর অনেক কিছু পর পর করলেও চাপ মনে হবে না তা।
.

#
১৪ব্যর্থ হলেও কাজে যে শ্রম দিয়েছেন তা নিয়ে গর্বিত থাকুন

দুই ধরনের মানুষ আপনার ব্যবসায়িক উদ্যোগ নিয়ে আলোচনা করবে। একদল হলো যারা সমালোচনা করতেই ভালোবাসেঅন্যের নিন্দা করেই তৃপ্তি পায়। আরেকদল আপনাকে সাহস জুগিয়ে যাবে। এখন কাদের কথা শুনবেন তা আপনাকেই ডিসাইড করতে হবে।

ব্যর্থ হওয়া অনেক সময় লজ্জার হতে পারে। কিন্তু উদ্যোক্তা হতে চাইলে আপনাকে এই লজ্জা কাটিয়ে ওঠার ক্ষমতা তৈরি করতে হবে। ব্যর্থতা থেকে সবসময় শুধু শিক্ষাটাই নিতে হবে।
.

#
১৫কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ব্যবসা শুরু করে দিতে পারেন আসলে

অনেকেই আছেন ব্যবসা করতে চানকিন্তু কাগজপত্র বা আইনি জটিলতার ভয়ে শুরু করছেন না। বাস্তবটা কিন্তু এর ঠিক উল্টা। শুরুর টাইমে আপনার হয়ত কোনো কাগজপত্রই লাগবে না। পরে প্রয়োজনে সে সব ঠিক করে নিতে পারবেন। শুধু সিদ্ধান্তটা নিতে হবে।

যারা ব্যবসায় আছেন কিংবা ব্যবসা করেছেনতাদের কাছ থেকে পরামর্শ নিন। ব্যবসা করতে তারা কখনো কোনো কাগজপত্র